রাতে জিম করার আগে ও পরে কি খাওয়া উচিত? কি খাওয়া উচিত নয়?

রাতে সকল কাজ শেষে বা ব্যস্ততার কারনে আমাদের মধ্যে অনেকে রাত জিম করতে পছন্দ করেন। আর তাই আজ আমরা জানবো রাতে জিম করার আগে ও পরে কি খাওয়া উচিত এবং কি খাওয়া উচিত নয়।

রাতে জিম করার আগে কি খাওয়া উচিত?

রাতে জিম করার আগে খাওয়া উচিত এমন কিছু খাবার রয়েছে যা আপনাকে শক্তি দেয় এবং আপনার ব্যায়ামের সময় আপনার পেটকে খালি রাখতে সাহায্য করে।

রাতে জিম করার আগে খাওয়া উচিত এমন খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • প্রোটিন: প্রোটিন পেশী গঠন এবং মেরামত করতে সাহায্য করে। রাতে জিম করার আগে খাওয়ার জন্য ভাল প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে মাংস, মাছ, ডিম, এবং দুগ্ধজাত পণ্য।
  • কার্বোহাইড্রেট: কার্বোহাইড্রেট শক্তির জন্য প্রয়োজনীয়। রাতে জিম করার আগে খাওয়ার জন্য ভাল কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে ফল, শাকসবজি, এবং সম্পূর্ণ শস্য।

রাতে জিম করার আগে খাওয়া উচিত নয় এমন খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • চর্বিযুক্ত খাবার: চর্বিযুক্ত খাবার হজম করতে সময় লাগে, তাই এটি আপনার ব্যায়ামের সময় আপনার পেটকে ভারী করে তুলতে পারে।
  • অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবার: অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবার আপনার রক্তের শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে, যা আপনার ব্যায়ামের সময় আপনার শক্তির স্তরকে হ্রাস করতে পারে।
  • ক্যাফিনযুক্ত পানীয়: ক্যাফিনযুক্ত পানীয়গুলি আপনার হৃদস্পন্দন বাড়াতে পারে, যা আপনার ব্যায়ামের সময় আপনার হৃদয়ের উপর চাপ বাড়াতে পারে।

রাতে জিম করার আগে খাওয়ার জন্য কিছু টিপস:

  • আপনার ব্যায়ামের অন্তত ২ থেকে ৩ ঘন্টা আগে খাওয়ার চেষ্টা করুন।
  • আপনার হজম প্রক্রিয়াকে সহজ করতে সহায়ক খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন।
  • আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক অতিরিক্ত চিনি, লবণ এবং চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।

রাতে জিম করার আগে খাওয়ার জন্য কিছু নির্দিষ্ট খাবারের উদাহরণ:

  • প্রোটিন: একটি ডিম, একটি ছোট মুরগির বুকের মাংস, বা এক কাপ টোফু।
  • কার্বোহাইড্রেট: একটি কলা, একটি ছোট পাউরুটি, বা এক কাপ ভাত।

আপনার জন্য কোন খাবারটি সবচেয়ে ভালো তা আপনার ব্যক্তিগত প্রয়োজনীয়তার উপর নির্ভর করে। আপনার ডায়েটিশিয়ান বা একজন নিবন্ধিত পুষ্টিবিদের সাথে কথা বলুন তারা আপনার জন্য একটি ব্যক্তিগতকৃত পরিকল্পনা তৈরি করে দিবে।

 

খালি পেটে ব্যায়াম করা উচিত?

খালি পেটে ব্যায়াম করা উচিত কিনা তা নির্ভর করে আপনার ব্যায়ামের ধরন, আপনার শারীরিক অবস্থা এবং আপনার ব্যক্তিগত পছন্দের উপর।

খালি পেটে ব্যায়ামের কিছু সুবিধা:

  • আপনি আরও বেশি ক্যালোরি পোড়াতে পারেন।
  • আপনার শরীরের চর্বি কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  • আপনার ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বাড়াতে পারে।
  • আপনার পেশী গঠনে সাহায্য করতে পারে।

খালি পেটে ব্যায়ামের কিছু অসুবিধা:

  • আপনি দুর্বলতা বা ক্লান্তি অনুভব করতে পারেন।
  • আপনার হজম সমস্যা হতে পারে।
  • আপনি মাথা ঘোরা বা বমি বমি ভাব অনুভব করতে পারেন।

খালি পেটে ব্যায়াম করার জন্য কিছু টিপস:

  • আপনি যদি নতুন ব্যায়াম শুরু করেন তবে খালি পেটে ব্যায়াম করা শুরু করা এড়িয়ে চলুন।
  • আপনার ব্যায়ামের আগে প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন।
  • আপনার ব্যায়ামের সময় আপনার শরীরের লক্ষণগুলির দিকে মনোযোগ দিন।
  • আপনি যদি দুর্বলতা, ক্লান্তি, মাথা ঘোরা বা বমি বমি ভাব অনুভব করেন তবে ব্যায়াম বন্ধ করুন।

খালি পেটে ব্যায়াম করা কি নিরাপদ?

সাধারণভাবে, খালি পেটে ব্যায়াম করা বেশিরভাগ মানুষের জন্য নিরাপদ। তবে, কিছু লোকের জন্য, এটি একটি স্বাস্থ্য ঝুঁকি হতে পারে।

নিম্নলিখিত ক্ষেত্রে খালি পেটে ব্যায়াম করা এড়ানো উচিত:

  • আপনি যদি ডায়াবেটিস, হাইপোগ্লাইসেমিয়া, বা অন্য কোনও মেটাবলিক সমস্যায় ভুগে থাকেন।
  • আপনি যদি অসুস্থ বোধ করেন।
  • আপনি যদি ক্লান্ত বা দুর্বল বোধ করেন।
  • আপনি যদি গর্ভাবস্থায় বা বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়।

আপনি যদি নিশ্চিত না হন যে খালি পেটে ব্যায়াম করা আপনার জন্য নিরাপদ কিনা, তাহলে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

 

রাতে ব্যায়াম করার পর কি খাওয়া উচিত?

রাতে ব্যায়াম করার পর খাওয়ার ব্যাপারে কিছু বিষয় মাথায় রাখা উচিত:

  • খাবারটি হালকা এবং হজমযোগ্য হওয়া উচিত। ভারী খাবার খেলে ঘুমের সমস্যা হতে পারে।
  • খাবারে প্রোটিন থাকা উচিত। প্রোটিন পেশীর গঠন এবং মেরামত করতে সাহায্য করে।
  • খাবারে কার্বোহাইড্রেট থাকা উচিত। কার্বোহাইড্রেট শক্তি সরবরাহ করে।

রাতে ব্যায়াম করার পর কিছু ভালো খাবারের উদাহরণ হল:

প্রোটিন শেক: প্রোটিন শেক একটি সহজ এবং সুবিধাজনক উপায়ে প্রোটিন গ্রহণের।

ডিম: ডিম একটি চমৎকার প্রোটিন উৎস।

টুনা: টুনা একটি প্রোটিন এবং ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার।

শাকসবজি: শাকসবজি ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার সমৃদ্ধ।

ওটমিল: ওটমিল একটি স্বাস্থ্যকর কার্বোহাইড্রেট উৎস।

আপনি যদি ওজন কমাতে চান, তাহলে রাতে ব্যায়াম করার পর কম ক্যালোরির খাবার খাওয়া উচিত।

এছাড়াও, আপনি যদি কোনও নির্দিষ্ট ডায়েট অনুসরণ করেন, তাহলে সেই ডায়েটের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ খাবার খাওয়া উচিত।

এখানে কিছু নির্দিষ্ট খাবারের উদাহরণ দেওয়া হল যা আপনি রাতে ব্যায়াম করার পর খেতে পারেন:

  • ডিনারের জন্য:
    • প্রোটিন শেক + ফল
    • ডিম + সালাদ
    • টুনা স্যান্ডউইচ + সবজি
    • ওটমিল + ফল
  • স্ন্যাকসের জন্য:
    • প্রোটিন বার
    • ফল
    • বাদাম
    • প্রোটিন শেক

আপনার ব্যক্তিগত চাহিদা এবং লক্ষ্যগুলির উপর নির্ভর করে আপনি কোন খাবারগুলি বেছে নেবেন তা নির্ধারণ করবেন।

জিম শুরু করার আগে ও শেষ করার পর খাবারের লিস্ট দেখুন।

 

রাতে জিম করার আগে ও পরে কি খাওয়া উচিত নয়?

রাতে জিম করার আগে ও পরে যেসব খাবার খাওয়া উচিত নয় সেগুলি হল:

রাতে জিম করার আগে খাওয়া উচিত নয় এমন খাবার:

  • ভাজা খাবার: ভাজা খাবার হজম করতে বেশি সময় লাগে, যা রাতে ব্যায়াম করার সময় আপনার শক্তির মাত্রা কমাতে পারে।
  • ফাস্ট ফুড: ফাস্ট ফুড প্রায়ই প্রক্রিয়াজাত এবং অস্বাস্থ্যকর উপাদান দিয়ে তৈরি হয়, যা আপনার পেশীর বৃদ্ধি এবং পুনরুদ্ধারের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।
  • চিনিযুক্ত পানীয়: চিনিযুক্ত পানীয় শরীরের ওজন বাড়াতে এবং পেশীর ক্ষতি করতে পারে।
  • অ্যালকোহল: অ্যালকোহল পেশীর বৃদ্ধি এবং পুনরুদ্ধারের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

রাতে জিম করার পরে খাওয়া উচিত নয় এমন খাবার:

  • ভারী খাবার: ভারী খাবার হজম করতে বেশি সময় লাগে, যা ঘুমের সমস্যা হতে পারে।
  • ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার: ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার হজম করতেও বেশি সময় লাগে।
  • তৈলাক্ত খাবার: তৈলাক্ত খাবার হজম করতেও বেশি সময় লাগে এবং আপনার পেটে অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে।
  • কফি বা চা: কফি এবং চা ক্যাফিন সমৃদ্ধ, যা ঘুমের সমস্যা হতে পারে।

আপনি যদি রাতে জিম করেন, তাহলে আপনার খাবার নির্বাচন করার সময় এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন। এটি আপনার ব্যায়াম থেকে সর্বাধিক উপকার পেতে এবং ঘুমের সমস্যা এড়াতে সাহায্য করবে।